পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি prieopathak (প্রিয় পাঠক) Motivational speech and stories

পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি

প্রেরণাদায়ক

পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি

মানুষ সামাজিক জীব। সমাজে বেঁচে থাকার জন্য তাঁকে কাজ করতে হয়। পৃথিবীতে কেউ সাফল্যের চামচ নিয়ে জন্মলাভ করে না। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সবকিছু অর্জন করতে হয়। মানুষের এখন অনেক পরিবর্তন এসেছে। তবে পরস্পরের মধ্যে চিন্তা-চেতনার ঐক্য খুব কমই দেখা যায়। জীবন আসলে কণ্টকাকীর্ণ। সফলতার সহজ কোন রাস্তা নেই। সাফল্যের মূলমন্ত্র কঠোর পরিশ্রম আর অপরিসীম ধৈর্য্য। আশা না ছেড়ে পরিশ্রম করে গেলে সফলতা একদিন আসতে বাধ্য। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে সবকিছু অর্জন করতে হয়। প্রবাদ আছে, ‘পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি’। পরিশ্রমের দ্বারা ভাগ্যের চাবিকাঠি এমনভাবে পরিবর্তন করা সম্ভব, যা অলস মানুষের কাছে অলৌকিক বলে মনে হয়। যে কোনো ক্ষেত্রে সফলতার প্রথম শর্ত হল প্রবল ইচ্ছাশক্তি ও কঠোর পরিশ্রম। আমরা সবাই ধনী নই, কিন্তু পৃথিবীর ইতিহাসে বর্তমান সময়ে আমরা সবচেয়ে ধনী প্রজন্মের সদস্য। চিন্তা করে দেখুন, আগের সময়ের পৃথিবীর মানুষের চেয়ে আমরা কত বেশি সুযোগ-সুবিধা লাভ করছি। যেকোনো ক্ষেত্রে সফলতার প্রথম শর্ত হলো প্রখর ইচ্ছেশক্তি ও কঠোর পরিশ্রম। মানুষ যদি তার লক্ষ্যে অটুট থাকে এবং সে অনুযায়ী কাজ করে তবে একদিন সাফল্যের সুউচ্চ চূড়ায় পৌঁছাতে পারে। পরিশ্রম হলো উন্নতির একমাত্র সিঁড়ি। পৃথিবীর ইতিহাসে অনেক সফল ব্যক্তির নাম স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে। যুগে যুগে, কালে কালে যারা স্মরণীয় ও বরণীয় হয়েছেন, প্রকৃতপক্ষে তাদের সাফল্যের পেছনে লুকিয়ে আছে কঠোর পরিশ্রম ও অধ্যবসায়। আধুনিক বিশ্বে যা কিছু আবিষ্কার হয়েছে সবই পরিশ্রমের ফসল। কঠোর পরিশ্রম সৌভাগ্যের প্রসূতি। সৌভাগ্য নিয়েই পৃথিবীতে কোনো মানুষের জন্ম হয় না। কর্মের মাধ্যমে তার ভাগ্য গড়ে নিতে হয়। পরিশ্রমই সৌভাগ্য বয়ে আনে। উদ্যম, চেষ্টা ও শ্রমের সমষ্টিই সৌভাগ্যের চাবিকাঠি। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে কঠিন কাজও সহজ হয়। জীবনে উন্নতি করতে হলে পরিশ্রমের কোনো বিকল্প নেই। পরিশ্রম ছাড়া কেউ কখনো তার ভাগ্যকে গড়ে তুলতে পারেনি। মানুষ কোনো কাজে প্রথমবারেই সাফল্য লাভ নাও করতে পারে। দীর্ঘদিনের পরিশ্রম বা নিরবচ্ছিন্ন পরিশ্রমের ফলেই ধরা দেয় কাক্সিক্ষত সাফল্য। কোনো কাজে ব্যর্থ হলে তাতে হতাশ না হয়ে সেই কাজে কঠোর মনোনিবেশ করলে সফল হওয়া অবশ্যই সম্ভব। কিছু মানুষ বিশ্বাস করে, প্রতিভা বা ভাগ্যের দ্বারা অসাধ্য সাধন করা যায়। কিন্তু পৃথিবীতে যারা কীর্তিমান, তারা প্রতিভার চেয়ে কঠোর পরিশ্রমকেই গুরুত্ব দিয়েছেন বেশি। ইসলাম ধর্মের প্রচারক হযরত মুহাম্মদ (সা) মক্কার কাফিরদের এতো অত্যাচারের পরেও সত্যধর্ম প্রচার থেকে বিরত হননি। বরং কঠোর পরিশ্রমের ফলেই ইসলামের আদর্শ প্রতিষ্ঠিত করেছেন। গ্রীসের বাগ্মী প্রবর ডিডমস্থিনিয়া প্রথম জীবনে তোতলা ছিলেন। কিন্তু প্রবল ইচ্ছেশক্তি আর কঠোর পরিশ্রমের ফলে তিনি পরবর্তীতে গ্রীসের বিখ্যাত বক্তা হবার সুখ্যাতি অর্জন করেছিলেন। মুঘল রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা বাবর প্রথম জীবনে রাজ্য থেকে বিতাড়িত হলেও পরবর্তীতে তিনিই সমগ্র ভারতবর্ষের সম্রাট হতে পেরেছিলেন কেবলমাত্র অধ্যবসায় বা পরিশ্রমের ফলে। মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব। যারা কঠোর পরিশ্রমী, সৃষ্টিকর্তা তাদের সহায়তা করেন। পরিশ্রমহীন ব্যক্তিদের পরিণতি অতীব করুণ হয়। প্রবাদ আছে-অলস মস্তিষ্ক শয়তানের কারাখানা। পরিশ্রমহীন মানুষেরা সকলের কাছে নির্গৃহীত হয়। কোন কাজে সফলতা লাভ করতে না পেরে সমাজের আস্তাকুঁড়ে নিক্ষিপ্ত হয়। তাই সফলতার পথে এগিয়ে যেতে আমাদের কঠোর পরিশ্রমী হতে হবে। নিজেকে ভালোবাসুন এবং নিজেকে জানুন। তাহলে আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে বলে আমার মনে হয়। চেষ্টা করুন যথাসম্ভব নিজেকে জানার এবং ভালোবাসার, আশা করছি আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়বে। সব নতুন অভিজ্ঞতা আপনার দক্ষতাকে বিকশিত করবে, দৃষ্টিভঙ্গিকে বদলে দেবে। যে কোনো কাজকে ভালোবাসুন। কাজকে উপভোগ করুন। অভিজ্ঞতাই আপনার সাফল্যের গতি নির্ধারণ করে দেবে। জীবনের লক্ষ্য নির্ধারণে মনোযোগী হোন। কঠোর পরিশ্রম করুন আপনি অবশ্যই সফল হবেন। সফলতার জন্য চাই ইচ্ছাশক্তি, একাগ্রতা ও কঠোর পরিশ্রম।

পরিশ্রম সাফল্যের চাবিকাঠি

প্রিয় পাঠক

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *