কীভাবে ভয়কে জয় করা যায় এবং সাফল্য অর্জন করা যায় prieo pathak

কীভাবে ভয়কে জয় করা যায় এবং সাফল্য অর্জন করা যায়

সাফল্যের পথে

কীভাবে ভয়কে জয় করা যায় এবং সাফল্য অর্জন করা যায়

একজন কর্মচারী বলেছিল আমাদের দোকানের মালিককে আমার খুব ভয় লাগে। সর্বদা খিটখিট করে। আমাকে দোকানে রাখবে না বলছে। যদি না রাখে তাহলে আমি ছেলে-বউকে খাওয়াব কী? আমি বললাম- কেনো রাখবে না বলেছে?

সে বলল- বেচাকেনা ভালো হচ্ছে না। খদ্দের এই দোকানে আসতে চাচ্ছে না। তাছাড়া বাচ্চারাতো ওর চোখ-মুখ দেখে মোটেই আসতে চায় না।

আমি বললাম- মালিকের চোখে চোখ রেখে সাহস করে কথা বল-“আপনি একটু হাসি মুখে থাকুন। আপনাকে বাচ্চারা ভয় করে। তাই সে আসতে চাইছে না। আমাদের বেচাকেনার ব্যবস্থা পাল্টাতে হবে। হাসি মুখে কথা বলতে হবে।”

কর্মচারীটি তখন সাহসের সাথে মালিককে বলল- আপনি গম্ভীর হয়ে থাকেন বলে বাচ্চারা কেউ দোকানে আসতে চাইছে না। আপনি একটু হাসিমুখে থাকুন। সব মানুষই হাসিমুখ পছন্দ করে।

মালিকটি কিছুক্ষণ স্তম্ভিত হয়ে বলল- ঠিক আছে। আমি দোকানে কম আসব। তুমি একটু নতুনভাবে বেচাকেনা করো- কী হয় দেখা যাক!

পরদিন থেকে মালিক কর্মচারীটির সাথে প্রাণখুলে হাস্যমুখে কথা বলতে শুরু করল। সেই সাথে খরিদ্দারদের সঙ্গেও। দেখা গেল, দু-একদিন পরে খরিদ্দার বাড়তে শুরু করেছে। বাচ্চারাও ভিড় করছে।

একদিন চোখে চোখ রেখে সাহস করে মালিকের সাথে কথা বলতেই কর্মচারীটির ভয় যেমন কাটল তেমনি মালিকের প্রাণখোলা কথাতে খরিদ্দার ও বাচ্চাদের ভয় দূর হলো।

ভয় কাটানের উপায়

মানুষ মানুষকে ভয় করে আর সেজন্যই ভীতুরা জীবনে সাফল্য লাভ করতে পারে না। তবে সেই ভয় কাটানো অনেকগুলো উপায় আছে।

১. যাকে ভয় লাগে যথাসময়ে তার সামনে বসার চেষ্টা করুন। তার সাথে কিছু সময় অতিবাহিত করুন।

২. সেই ব্যক্তির চোখে চোখ রেখে কথা বলুন। নিজেকে দুর্বল না ভেবে সবল ভাবুন। মনের মধ্যে অপরাধবোধ জাগাবেন না। চোখে চোখ রেখে কথা বলার অর্থ আমি সৎ। আমি যা বলব- তা আমার মনের কথা। ভাববেন, আমি ভীরু নই। আমার মধ্যে সৎ সাহস আছে।

৩. বিভিন্ন স্থানে বিভিন্ন আলোচনায় অংশ নিন।

৪. অযথা নিজেকে কখনো ছোটো ভাববেন না।

৫. নিজেকে কম জ্ঞানী ভাববেন না।

৬. বিভিন্ন মিটিং, ফাংশানে অংশগ্রহণ করুন।

৭. মুখে হাসি নিয়ে কথা বলুন।

৮. ভাবুন, সব মানুষই সমান। অনেকেই গর্জন করতে চায়, কিন্তু কামড়ায় না।

৯. মানুষকে সম্মান দিন, সম্মান পাবেন।

১০. নিজেকে বলুন- আমি বিদ্ধান।

১১. নিচু স্বরে নয়, স্বাভাবিক স্বরে কথা বলুন।

১২.বিবেককে বলতে দিন- আমি সঠিক।

১৩.মনে রাখুন- “যারা ভয়ে ভীত তুমি অন্যায় ভীরু তোমার চেয়ে, যখনই জাগিবে তুমি তখনই সে পলাইবে ধেয়ে।”

১৪. কোনো ফাংশানে আবৃত্তি করুন বা যে কোনো বক্তব্য দেওয়ার চেষ্টা করুন।

১৫. ক্লাসে দাঁড়িয়ে শিক্ষকের সামনে পড়া বলুন।

১৬. সৎ হোন। কারো সাথে কপটতা করবেন না।

১৭. চুরি করার মনোভাব মন থেকে ত্যাগ করুন।

১৮. সবাই আমরা একই মানুষ, সবারই ক্ষুধা তৃষ্ণা আছে, সবাই আমরা প্রশংসা পছন্দ করি, এই মনোভাব নিয়ে মানুষের প্রশংসা করতে করতে এগিয়ে যান। ভয় কেটে যাবে।

আপনার মধ্যেই ভয় কে জয় করার এক আশ্চর্য শক্তি আছে। আপনি চাইলে অবিলম্বেই ভয় কে জয় করতে পারেন আমার বিশ্বাস আপনি নিশ্চয়ই ভয় কে জয় করতে পারবেন এবং সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারবেন। সবকিছু রাখার জায়গা আছে কিন্তু ভয় রাখার জায়গা নেই। এর অর্থ জানেন কি যে ভয় পেল সে হেরে গেল এবং যে হেরে গেল সে মরে গেল। আপনি যদি ভয় পান যে আপনি তার সঙ্গে পারবেন না তো আপনি হেরে যাবেন এবং পরবর্তীতে সে আপনাকে মেরেও দিতে পারে। সে কে সে আপনার ভয়। তাই সব সময় ভয় কে জয় করার চেষ্টা করুন। তাহলেই আপনি সবসময় জয়ী হতে পারবেন।

 

কীভাবে ভয়কে জয় করা যায় এবং সাফল্য অর্জন করা যায়

প্রিয় পাঠক

Social Share

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *